দিনলিপি; শ্লোক - ১৯

ইচ্ছে হলেই কাব্য লিখি
ইচ্ছে হলেই আঁকি।
ইচ্ছে হলেই আকাশ পানে
তাকিয়ে শুধু থাকি।

পাদটীকা:
আমার কোন কোন দিন কাটে উদ্দশ্যহীন। থাকে না কোন গড় বাধা নিয়ম রুটিন। মাঝে মাঝে ইচ্ছের স্রোতে গা ভাসাই, খামখেয়ালী সব কিছু করি যা কিছু মনে চায়।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।
 
দিন লিপি; শ্লোক - ১৯

যুদ্ধ শেষে; শ্লোক - ১৮

যুদ্ধ শেষে রুগ্ন দেশে
সব হারিয়ে কাদছে শিশু,
বিশ্ববাসী দেখছে নিরব
নিরব আমি, নিরব যিশু।

পাদটীকা: শ্লোকটি যুদ্ধ বিদ্ধস্ত দেশের শিশুদের কথা ভেবে লেখা। পৃথিবীর কোথাও যুদ্ধ কাম্য নয়। রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয় আর নিরীহ নাগরিকে এর জন্য কড়া মূল্য দিতে হয়। যদ্ধু হানাহানি রক্তপাত, ক্ষমতা আর যুদ্ধাস্ত্র প্রদর্শনের মহরা ব্যতিত বেশি কিছু নয়।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

যুদ্ধ শেষে; শ্লোক - ১৮


প্রাচুর্য; শ্লোক - ১৭

প্রকৃত ধনী নয় তো সে,
যাহার আছে প্রচুর অর্থ সম্পদ ধন।
প্রকৃত ধনী হলেন তিনি,
যাহার আছে প্রাচুর্য পূর্ণ হৃদয় মন।

পাদটীকা: কেউ কেউ মানুষকে ধনী বা দরিদ্র হিসেবে মূল্যায়ন করে, ব্যক্তির কী পরিমান ধন সম্পদ বা ঐশর্য আছে তার পরিমাপে। তবে ধন সম্পদ একমাত্র ধনী বা দরিদ্র পরিমাপের মাপকাঠি নয়, উদারতা বা মহানুভহতা হলো ব্যক্তির মানসিক প্রাচুর্যতা বা দারিদ্রতা পরিমাপক।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

প্রাচুর্য; শ্লোক - ১৭


তুষার; শ্লোক - ১৬

তুলোর মত ঝরে তুষার
বিন্দু বিন্দু তারা।
শুভ্র সাদা জমাট পাহাড়
নীলাভ গ্রাম পাড়া।

পাদটীকা: শীতের দেশে তুষারপাতের দৃশ্য আমার ভালো লাগে, বিশেষতঃ যখন তা আকাশ হতে ঝরে পরে। তুষারে সূর্যের আলো প্রক্ষেপনের ঝলকানি মুগ্ধ করে।
শীতকালে চারিদিকে সব কিছু সাদা; জমাট বাধা নদের জলের উপর হাটতে হাটতে নিজেকে কল্পলোকের দেবপুত্র মনে হয়।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

https://www.shobdo.com/search/label/%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B8

লালন; শ্লোক - ১৫

মনুষ্যত্বই ধর্ম আমার
মানবতায় খুশি।
মনে হিংসা বিবাদ নয়
ভালোবাসা পুষি।

পাদটীকা: কোন বিশেষ ধর্মে দীক্ষিত হয়ে বাক্সবন্দী হওয়ার বদলে মানবিক মানুষ হওয়া জরুরী। ধর্মীয় বিশ্বাসের দৃষ্টিভঙ্গীর কারণে ভিন্ন মতাবলম্বীদের প্রতি হিংসা, বিবাদ, ঘৃণা বা বিদ্বেষ লালন করার পরিবরর্তে সহনশীল এবং উদার মনমানসীকতা লালন করা জরুরী।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

লালন; শ্লোক - ১৫


জীবন চক্র; শ্লোক - ১৪

যায় দিন ভালোর
আসে দিন কালোর।
যায় দিন কালোর
আসে দিন ভালোর।

পাদটীকা: পৃথিবী সূর্য্যকে কেন্দ্র করে অবিরত চক্রাকারে আবর্তন করে চলছে। রাত দিন এবং ঋতু আগমন বা গমন চক্রাকারে যথা সময়েই হচ্ছে। অনুরূপ আমাদের জীবনে সুসময় বা দূসময় চক্রাকারেই হচ্ছে; সুখের পরে দুঃখ বা দূখের পরে সুখ।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

জীবন চক্র; শ্লোক - ১৪

রবি ঠাকুর; শ্লোক - ১৩

তোমার কবিতারা জাগিয়ে ছিল
কিশোর প্রাণে কবি হওয়ার সাধ,
তোমার চিত্রকর্ম দেখে চিত্রকরের;
চিরকাল প্রেরণা তুমি রবীন্দ্রনাথ।

পাদটীকা: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নামটির সাথে প্রথম পরিচয় প্রথম শ্রেনীতে বইয়ের প্রথম পাতায় জাতীয় সঙ্গীত পাঠের মাধ্যমে। এরপর একটু বড় হওয়ার পর যখন জানতে পারলাম আমাদের শাহজাদপুরে এক কালে উনাদের জমিদারী ছিলো, সেই সুবাদে উনার নামে একটা জাদুঘর আছে। জাদুঘরে রবি ঠাকুরের রচনার পান্ডুলিপি এবং চিত্রকর্ম দেখে অনুপ্রানীত হয়েছিলাম। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আমার অনুপ্রেরণা।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

রবি ঠাকুর; শ্লোক - ১৩


স্রষ্টা চরিত্র; শ্লোক - ১২

মানব আপন স্বার্থেই গড়েছে
ঈশ্বর, খোদা, ভগবান; 
আপন হাতেই লিখেছে কিতাব
তাঁহার নামে জয়গান।

পাদটীকা: ঈশ্বর কখনো মানুষের সামনে এসে তার অস্তিত্ব, মহানুভবতা বা ক্ষমতার কথা জানান দেননি। এবং ঈশ্বরের সকল জয়গান মানুষের তৈরী বর্ণমালা দিয়ে মানুষের হাতেই লেখা। মানুষ প্রাকৃতিকভাবে আশাবাদী প্রাণী, ভরসা করতে ভালোবাসে, তাই সে, স্বীয় জ্ঞানের মাপকাঠি দিয়ে এই কাল্পনিক সত্তাকে সাজায়, এবং ভরসা করে অপ্রাপ্তিগুলো ভুলে থাকে। আবার এই অজ্ঞাত শক্তির ভয় দেখিয়ে অন্যকে নিয়ন্ত্রণ করে। মোটকথা, ঈশ্বরের ধারণার স্রষ্টা মানুষ স্বয়ং।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

স্রষ্টা চরিত্র; শ্লোক - ১২


ধর্মগুরু; শ্লোক - ১১

ধর্মগুরু জাহির করে, সে
আধ্যাত্মিক প্রজ্ঞার আধার।
আম জনতায় মূর্খ মানব
কেহ নাই আর তার সমতার।

পাদটীকা: কোন কোন ধর্মগুরু, ধর্মীয় জলসায় বক্তব্য দিতে গিয়ে নিজেকে বিজ্ঞ এবং মহাজ্ঞানী হিসেবে জাহির করে, অনেক মিথ্যা এবং আজগুবি প্রসঙ্গের অবতারণা করে। ধর্মীয় বিষয়বস্তুকে বিশেষ্যায়িত করতে গিয়ে স্বয়ং ধর্মীয় বিষয়বস্তুকে খাটো করে লোক হাসায়।
আরিফুর রহমান, নরওয়ে।

ধর্মগুরু; শ্লোক - ১১


পরিসংখ্যান